Bookmaker Bet365.com Bonus The best odds.

Full premium theme for CMS

খোঁয়াড়

Written by সাইফ সুমন.

Блогът Web EKM Blog очаквайте скоро..

যন্ত্রিদল সমবেত বাদ্য বাজায়।

একজন লোক বালিশ নিয়ে মঞ্চে প্রবেশ করে। সে ঘুমানোর আয়োজন করে-

ভাইরে আরেকবার আসিয়া
যাও মোরে ঘুম পাড়াইয়া
আমি মনের সুখে একটু ঘুমাইতে চাই ...

আবাদি দল মঞ্চে ঢোকে
(গান)
হারে রে রে রে রে আমার বালিশটা তুই দেরে
উন্নয়নের জোয়ারে তোকে ভাসিয়ে দেব রে ...

আওয়ারা দল মঞ্চে ঢোকে
(গান)
তোরা যে যাই বলিস ভাই, আমার বালিশটা চাই
স্বপ্ন দিয়ে তোকে আমি ভরিয়ে দেব ভাই।
আমার বালিশটা চাই, আমার বালিশটা চাই ...

(‘বালিশ চাই‘ ‘বালিশ চাই‘ শব্দে লোককে ঘিরে ধরে দুই দল। ক্রমশ ঘন হয়ে আসে দু’দল। লোকটা এদিক-ওদিক ভয়ের দৃষ্টিতে তাকায়। কিছু না বুঝেই বালিশটা ছুঁড়ে দেয় ‘আবাদি দলের’ দিকে। ‘আবাদি দল’ বালিশটা নিয়ে আনন্দ করে)

আওয়ারা দলনেতা
হায় হায়, আমার বালিশটা নিয়ে গেল। লোকটা আমাকে দিতে চেয়েছিল কিন্তু সুক্ষ্মœভাবে ওরা ধরে নিয়ে গেল। এখন আমার কি হবে? আমাকে তো আবার রাস্তায় যেতে হবে। এই, তোরা কী করছিলি?

আওয়ারা নেতা-১
বস, ওরা লোকটাকে ভয় দেখিয়ে বালিশটা নিয়ে গেছে।

আওয়ারা দলনেতা
চুপকর বলদের দল। ওরা ভয় দেখিয়েছে, তোরা কি করেছিলি?

আবাদি দলনেতা
ভাইসব, এখন আমাদের আনন্দের সময়। আমরা আনন্দ করবো কিন্তু কারো জান-মালের ক্ষতি করবেন না। মনে রাখতে হবে, আমরা সবসময়ই উন্নয়নের লুটনীতি করি -Sorry উন্নয়নের রাজনীতি করি। লোকটা আমাদের বালিশ দিয়েছে, আমরা লোকটাকে যা দেয়ার তাই দেব (পাশে দাঁড়ানো নেতার সাথে চোখ টিপে হাসি)। লোকটাকে আমরা পাঁচতলা একটা বাড়ি বানিয়ে দেব, তার বাড়িতে যাওয়ার জন্য পাতাল রাস্তা, ফ্লাই রাস্তা বানিয়ে দেব। কোনো কাজ না করেই যাতে বসে বসে খেতে পারে সে ব্যবস্থাও করে দেব, ইন্শাল্লাহ।

লোক
না না, আমার অত কিছুর দরকার নাই। কাজ কইরা যাতে খেতে পারি আর রাইতে যাতে নিশ্চিন্তে ঘুমাইতে পারি, খালি এইটুকুনই চাওয়া।

আওয়ারা দলনেতা
ভাইসব, আপনার এই স্বপ্ন কোনোদিনই পূরণ হবে না যদি বালিশ ওদের হাতে  থাকে। তাই, আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে হারানো বালিশ পুনরুদ্ধারে নামি। আপনারা সাথে থাকলে ওদের বালিশ নিয়ে শান্তিতে থাকতে দেব না। ওদের আমরা এমন ধাক্কা দেব যে প্রশান্ত মহাসাগরে গিয়ে পড়বে।

(দুই দলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে। ছায়া মঞ্চে ঢোকে)

ছায়া
হা হা হা ... হো  হো হো ... হি হি হি ...

লোক
হুনেন, হুনেন। আপনারা ধাক্কা ধাক্কি থামান। এই যে আপনারা, বালিশ পাইছেন, অহন অগরে নিয়া পরিষদে যান। আর এই যে আপনারা, যা বলার পরিষদের ভিতরে গিয়ে কন।

আবাদি দলনেতা
হ্যাঁ , ঠিক কথা। চলেন সবাই পরিষদে।

আওযারা দল
না না না

আবাদি নেতা-১
ট্যাক্স ফ্রি গাড়ি

আবাদি নেতা-২
গানম্যান-

আবাদি নেতা-৩
লাল পাসর্পোট

আবাদি দলনেতা
ফ্রি ফ্রি ফ্রি সব কিছু ফ্রি -

আওয়ারা দলনেতা
চল চল পরিষদে যাই-

দুদলেই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লোকটাকে ঘিরে ধরে-

(গান )
আমরা সবাই নেতা আমাদের এই ভেড়ার রাজত্বে
এখন আমরা ভেড়ার দলকে চড়াবো ইচ্ছা মতে
আমরা সবাই নেতা ...।
আমরা যা খুশি তাই করি
তবু হেসে খেলেই চলি
মোরা নই বাঁধা নই কারো কাছে ভেড়ার রাজত্বে
এখন আমরা ভেড়ার দলকে চড়াবো ইচ্ছা মতে
আমরা সবাই নেতা ...

ছায়া
তুমিও নেতা, আমিও নেতা,
শিখন্ডী আর ডামিও নেতা,
টাকের সাথে টিকিও নেতা,
টাকার সাথে সিকিও নেতা,
কোচার সাথে কাছাও নেতা,
চৌধুরী ঠক চাচাও নেতা,
মোটা এবং সরুও নেতা,
ঘোড়া, গাধা, গরুও নেতা,
অপকর্মের গুণীও নেতা,
চোর, জুয়াচোর, খুনীও নেতা।
গোমূর্খ সব নেশায় নেতা,
মতলবীরা পেশায় নেতা,
উঠছে আওয়াজ যেথা সেথা
তুমিও নেতা, আমিও নেতা।

ঘোষক
টৈঁট্ টে টেঁ ....... পরিষদের  মাননীয় মাইকমাষ্টার আসছে........ন।

(মাইকমাষ্টার বসার পর তার পাশে এসে ছায়া দাঁড়ায়। বালিশ পাছার নিচে দিয়ে আবাদি দল নেতা বসে)

মাইকমাষ্টার
সবার দৃষ্টি ও মনোযোগ আকর্ষণ করছি। আজ পরিষদে বালিশওয়ালা দল ও বালিশছাড়া দল, সবাই আছে। রাষ্ট্র পরিচালনায় জনগণের অংশীদারিত্বই হচ্ছে পরিষদীয় সরকারের মুলকথা। পরিষদের কাজ প্রশাসনের ক্রটি-বিচ্যুতি, দুর্বলতা এবং মানুষের অভাব অভিযোগ তুলে ধরে সরকারকে জবাবদিহিতে বাধ্য করা। সুতরাং দুদলকেই তাদের নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করতে হবে সঠিক ভাবে।

প্রধানমাথা (আবাদি দলনেতা)
এই, মাইকমাষ্টার এত জ্ঞান দেয় কেন?

অর্থমাথা
এই জন্যেই ওকে মাইকমাষ্টার বানাতে না করেছিলাম।

উপনেতা
বস সাবধান, ওর কথায় কান দিয়েছেন কি বালিশ ছাড়া হয়েছেন।
 
প্রধানমাথা    
ওহ প্লিজ, প্রথমেই আপনারা আমার মাথাটা ছ্যাড়াব্যাড়া করে দিবেন না।  (প্রধানমাথা দাঁড়ায়।)

মাইকমাষ্টার
মাননীয় প্রধানমাথা বক্তব্য রাখবেন।

প্রধানমাথা
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার। আমি আপনার মাধ্যমে দেশবাসীকে জানাতে চাই, আমরা উন্নয়নের লুটনীতি- থুক্কু উন্নয়নের রাজনীতিতে বিশ্বাস করি। তাই আমরা উন্নয়নের রোডম্যাপ করে দেশকে উন্নয়নের জোয়ারে ভাসিয়ে দেব, ইন্শাল্লাহ।

(বিরোধী দলনেতা [আওয়রা দলনেতা] দাঁড়ায়। ঐদিকে সরকারি দলের কয়েকজন হাততুলে রাখে)

মাইকমাষ্টার
আপনারা বসুন। মাননীয় প্রধানমাথার বক্তব্য শেষ হলেই এক এক করে পাবেন আশা করছি।

প্রধানমাথা
না না ,এত হাউকাউয়ের মধ্যে আমার মাথা ছ্যাড়াব্যাড়া হয়ে গেছে। পরে বলব। (প্রধানমাথার পরিচর্যা শুরু হয়ে যায়)

মাইকমাস্টার
এবার  মাননীয় বিরোধী দলনেতা।

বিরোধী দলনেতা
মাননীয় মাইকমাষ্টার, আমার মাথা কিন্তু হট হয়ে গেছে। এই সরকার উন্নয়নের রোডম্যাপ করছে না, করছে আমার নেতাকর্মীদের বাড়ি চেনার রোডম্যাপ। (বিরোধী দলের সবাই পাছা চাপড়ে স্বাগত জানায়)। তা না হলে এরা বালিশ পাওয়ার পর থেকে আমার  সবনেতাকর্মীদের বাড়ি ঘর ভেঙে চুরে, লুটপাট করে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে তাদের দুঃখের জোয়ারে ভাসিয়েছে কেন?

(বিরোধীদলের সবাই উত্তেজিত। সরকারি দলের অনেকেই মাইক চায়)

মাইকমাষ্টার
মাননীয়  সরকারী দলের  উপনেতা।

উপনেতা
মাননীয় মাইকমাষ্টার বিরোধী দলের নেতার অভিযোগ ভিত্তিহীন। কারণ এসব কর্মকাণ্ড কোথাও হয়েছে বলে আমার জানা নেই। যদি হয়েই থাকে তবে তা তাদের কাছ থেকেই শেখা। কারণ তারা যখন বালিশ পেয়েছিল তখন তারাও এসব করেছে।

(সরকারী দলের সবাই পাছা চাপড়ে অভিনন্দন জানায়।)

মাইকমাষ্টার
এবার ময়মনবাড়ি - ৪ থেকে নির্বাচিত মাননীয় সদস্য জনাব হেকমত উল্লাহ বেপারী বলেন।

হেকমত
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার, এই মহান পরিষদে আমাকে কিছু বলার সুযোগ দানের জন্য। আমি প্রথমেই গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করতে চাই সেইসব বীর শহীদদের- যাদের রক্তের বিনিময়ে এদেশ আমরা পেয়েছি। আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে ম্মরণ করতে চাই আমার মহান নেতাকে, যার আদর্শে উদ্ভাসিত হয়ে আমি লুটনীতিতে থুক্কু রাজনীতিতে এসেছি। আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করতে চাই, আমাদের প্রধান মাথাকে, যার আর্র্শীবাদ ধন্য হয়ে আজ এই মহান পরিষদে দাঁড়িয়ে কথা বলাতে পারছি। আমি গভীর ...

মাইকমাষ্টার
মাননীয় পরিষদ আপনি বক্তৃতা না দিয়ে আসল কথায় আসেন।

হেকমত
মাননীয় মাইক মাষ্টার আমি আসছি। আমি বলতে চাই, আমরা গভীর কষ্ট করে আজ এখানে এসেছি এবং বালিশ পেয়েছি। কিন্তু দেশের আইন শৃঙখলা পরিস্থিতি গভীর ভয়াবহ অবস্থায় চলে গেছে। পত্রিকায় দেখলাম এখন দেশে দৈনিক গড়ে ১১ জন করে মানুষ খুন হচ্ছে। এক্ষেত্রে মাননীয় স্বরাষ্ট্র মাথার বক্তব্য কি তা আপনার মাধ্যমে জানতে চাই মাননীয় মাইকমাষ্টার।

মাইকমাষ্টার
মাননীয় স্বরাষ্ট্রমাথা।

স্বরাষ্ট্রমাথা
মাননীয় মাইকমাষ্টার, একটি বিশেষ রাজনৈতিক মহলের ইন্ধনে পরিকল্পিতভাবে আমাদের ভাবমুর্তি নষ্ট করতে এসব হচ্ছে। আমরা তা বুঝি। কিন্তু আমি স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই এসব  করে কোনো লাভ নেই। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পুর্ণ আমার নিয়ন্ত্রণেই আছে এবং থাকবে । (পাছা চাপড়ে অভিনন্দন) আর মাননীয় পরিষদ সদস্য মানুষ খুন হওয়ার যে তথ্য দিয়েছেন তাতে আমাদের কী করার আছে, বলুন? আল্লাহর মাল আল্লায় নিয়া গেছে- তাতে আমরা কী করতে পারি।

ছায়া
হে ... হে.... হে.... আল্লাহর মাল আল্লায় নিয়া গেছে- কোনো সমস্যা নাই হো ... হো ... হো ... খুনি সন্ত্রাসী চাঁদাবাজরা কোনো সমস্যা নাই, চালায়া যাও। খুন, ধর্ষণ, অপহরণের লাগামহীন অবস্থা- তাও নাকি আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পুর্ণ নিয়ন্ত্রণে হি ...হি ... হি ...

মাইকমাষ্টার
চন্দ্রপুর-৩ থেকে নির্বাচিত মাননীয় পরিষদ সদস্য জনাব আমীর আলী সওদাগর।

আমীর
ধন্যবাদ, মাননীয় মাইকমাষ্টার। আমি প্রথমেই পরম শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি আমার মহান নেতাকে যার অক্লান্ত চেষ্টায় দেশে প্রথম উন্নয়নের ছোয়া লেগেছিল। তারপর শ্রদ্ধা জানাই ...

মাইকমষ্টিার
মাননীয় সদস্য আপনি সরাসরি প্রশ্নে যান।

আমীর
মাননীয় মাইকমাষ্টার আপনি বড়ই নির্মম, একটু শ্রদ্ধা নিবেদনও করতে দেন না। যাই হোক, মাননীয় মাইকমাষ্টার দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার যে অবস্থা তাতে জাতির মেরুদন্ড ক্রমেই ক্ষয়ে ক্ষয়ে যাচ্ছে। এভাবে চললে তো আমরা মেরুদন্ডহীন হয়ে  যাব। আমি মাননীয় শিক্ষামাথার কাছে আপনার মাধ্যমে জানতে চাই।

মাইকমাষ্টার
মাননীয় শিক্ষামাথা।

শিক্ষামাথা
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার। আমরা খুব শীঘ্রই দেশে অত্যাধুনিক কম্পিউটারাইজড শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করবো। তারই প্রস্তুতি হিসেবে শিশুদের জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিশ্বজনীন পরিসরের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টির আগেই দেশকাল ও ইতিহাস চেতনা গড়ে তোলার জন্য আমাদের মহান নেতার জীবনীগ্রন্থসহ কোটি কোটি টাকার বই কিনে বিনামূল্যে স্কুল কলেজে বিতরণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ধন্যবাদ।

(বিরোধীদলের কয়েকজন দাঁড়ায়)

মাইকমাষ্টার
আপনার সবাই মাইক চাইলেই তো আর দেয়া যাবে না। মাননীয় সদস্য জনাব আবদুল বাতেন মাষ্টার, বলেন।

বাতেন
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার, বহু প্রতীক্ষা ও অনুনয় বিনয়ের পর মাইক দেয়ার জন্য। মাননীয় মাইকমাষ্টার আপনার মাধ্যমে দেশবাসীকে জানাতে চাই, বর্তমান বালিশওয়ালা দল তো কোনো আদর্শিক রাজনৈতিক দল নয়। এমনকি তাদের নেতাও কোনো আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করেনি। এরকম নেতার জীবনী পড়িয়ে শিশুদের দেশকাল ও ইতিহাস চেতনা বৃদ্ধির চেষ্টা-জাতিকে রসাতলে ডুবিয়ে দেয়ার চেষ্টা চলছে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার আমাদের নেতার কোনো জীবনী কেনা হচ্ছে না কেন, আপনার মাধ্যমে জানতে চাই।

মাইকমাষ্টার
মাননীয় শিক্ষামাথা।

শিক্ষামাথা
মাননীয় মাইকমাষ্টার আমাদের নেতার জীবনী পড়লে দেশ রসাতলে যাবে আর তাদের নেতার জীবনী পড়লে জাতি সমৃদ্ধ হবে- এটা ভাবা আজগুবি ছাড়া আর কিছু না। তাদের নেতার জীবনী তো জেল-হাজত সংক্রান্ত, কবে জেলে ঢুকলেন কবে বের হলেন, এই সব। এগুলো পড়ে সবাই জেলমুখী হয়ে পড়বে, দেশে সন্ত্রাস বাড়বে। তাছাড়া, বড় কথা হলো তাদের আমলে আমাদের কোনো বই কেনা হয় নাই। তাদের কাছ থেকেই আমরা এসব শিখেছি। নিজের জালে নিজে আটকা পড়লে তো ধড়ফর করা ছাড়া গতি নাই। ধন্যবাদ।

(সবাই পাছা চাপড়ে স্বাগত জানায়)

মাইকমাষ্টার
পরিষদের অধিবেশন তাহাজ্জুতের নামাজের জন্য মুলতবি ঘোষণা করা হলো।

ছায়া
এই ফাঁকে আপনাদের বলে রাখি, দেশের বর্তমান পরিষদের মাত্র ৪৩ শতাংশ সদস্য øাতক ডিগ্রীধারী। আর ৫১ শতাংশ সদস্যই ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি- যারা একেবারেই জনগণ ও রাজনীতির বাইরের লোক।

স্বরাষ্ট্রমাথা
এই যে হেকমত সাহেব, নিজেরাই যদি নিজেদের পাছায় আঙ্গুল দেন, তবে বিরোধীদল কী করবে? আপনার এত পরিসংখ্যান দেওয়ার কী দরকার পরছে মিয়া।

হেকমত
না বস্, একটু আধ্টু না বললে পাবলিক মাইন্ড করে বুজেন না? হে .. হে .. হে ..

গোলাপ মহাজন
আরে রাখেন মিয়া, ব্যবসা পাতি মাত্র আরম্ভ করলাম। আমার ব্যবসায় বাগড়া দিব আর আমি ঘরে বসে আঙ্গুল চুসবো নাকি?

অর্থমাথা
গোলাপ ভাই, আপনার ব্যবসা আরম্ভ আর শেষ কী- গতবারও তো আপনি সরকারি দলেই ছিলেন।

গোলাপ মহাজন
না বস, হেরা আমারে ছিলাটা একটু বেশি দিছে বইলাই না এইবার আপনাদের সাথে চলে আসলাম। আমি বস Giveand take এ বিশ্বাসী।  আপনারা আমারে সুযোগ দিবেন, আমি আপনাদের সুবিধা দিব, এই আর কি।

শিক্ষামাথা
এই যে আমীর সাব, কি, দেশের সবাইকে সক্রেটিস বানাতে চান? ইলেক্শনের খরচটা আগে তুলতে দিবেন তো, নাকি?

প্রধানমাথা
উফ্! আপনারা একটু আস্তে বলেন না। ওরা শুনতে পাবে তো।

বিরোধীনেতা-১
বস্, এখন পর্যন্ত আমরা মাইক পাই নাই। বক্তৃতা কি ওরা ওরাই দিব?

বিরোধীদল নেতা
রুস্তম সাব, আপনার এলাকায় মঙ্গা চলছে না?

রুস্তম
জী-জী।

বিরোধীদল নেতা
এরপরে আপনি মাইক চান, দেখি কী বলে?

বাতেন মাষ্টার
এই যে নিজামউদ্দিন হাক্কানী সাহেব, নামাজ পড়ে আসলেন নাকি?

নিজামউদ্দিন
নারে ভাই, পেটের অবস্থা খুবই খারাপ।

বিরোধীনেতা-১
খারাপতো হবেই, ঘন ঘন কোল বদলের অভ্যাস যাদের তাদের এমন হয়। আচ্ছা, আপনার কি জ্বর থাকে, ওজন কি আগের থেকে কমে যাচ্ছে নাকি? হায় হায় এইড্স- টেইডস্ হইল না তো?

নিজামউদ্দিন
ওয়াস্তাগফিরুল্লাহ। কী বলেন এসব। আল্লাহ মেহেরবান। আর কোল বদল কী আর সাধে করি? আপনাদের লোকজন আমাদের অতীত নিয়া খুঁচাখুঁচি করে খালি। কত খুঁচা খাওয়া যায় কন? তাছাড়া ওরা আবার আমাদেরকে আপনাদের চেয়ে একটু বেশি খেদমত করে কিনা।

ঘোষক
টেঁট্ টেঁটে ... মাননীয় মাইকমাষ্টার আসছে .... ন।

(মাইকমাষ্টার বসার পর সরকারী ও বিরোধীদল থেকে মাইক চাওয়ার প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে যায় ।)

মাইকমাষ্টার
সবাইকে তো ভাই এক সাথে দেয়া যাবে না। মাননীয় সদস্য জনাব সফর মিয়া,  নীলমনিরহাট-১।

(বিরোধী দলের সবাই ক্ষোভ প্রদর্শন করে।)

সফর মিয়া
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার। আজ আমার জন্য একটা ঐতিহাসিক দিন। জাতির উদ্দেশ্যে এই প্রথম আমি মহান পরিষদে দাঁড়িয়ে কিছু বলার সুযোগ পেয়ে আজ নিজেকে ধন্য মনে করছি। আপনাকে আবার ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার আমাকে মাইক দেয়ার জন্য। কিন্তু মন আমার আজ দিশেহারা। আমরা সবাই ইতিমধ্যে জেনেছি, সরকার মাত্র ১৯ কোটি টাকার জোগাড় করতে পারে নাই বলে আসবাবপত্র ছাড়াই আমাদেরকে বাসা বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। এটা আমাদের জন্য খুবই অপমানজনক ব্যাপার।

(সরকারী ও বিরোধীদল সবাই পাছা চাপড়ে অভিনন্দন জানায়।)

আমরা এতএত টাকা খরচ করে বালিশ নিয়ে এই মহান পরিষদে এসেছি আর আমাদের জন্য মাত্র ১৯ কোটি টাকা খরচ করা গেল না মাননীয় মাইকমাষ্টার? এই লজ্জা শুধু আমাদের না পুরো জাতির।

(দুদলের পাছা চাপড়ানো চলতে থাকে )

মাইকমাষ্টার
সরকারিদল ও বিরোধীদল যৌথভাবে এই বিষয়টির সাথে একমত হয়েছেন দেখে বিষয়টি জনগুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হচ্ছে। এ ব্যাপারে আমি প্রধানমাথাকে সদয় বিবেচনা করতে বলবো। এখন অংপুর-৩ থেকে নির্বাচিত সদস্য জনাব রুস্তম আলী আড়ৎদার বলবেন।

রুস্তম আলী
আপনার সদয়দৃষ্টি আমার উপর পরার জন্য ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার। এর আগে আপনার মাইকের একপেসে সুইচ টিপাটিপি দেখে মনে হচ্ছে আমরা পরিষদ ভবনের সামনের লেকের ব্যাঙ-কাছিম। মাননীয় মাইকমাষ্টার আপনার হয়তো জানা নেই, আমার দাদাজান ছিলেন এই পরিষদের সদস্য। আমার বাবা ছিলেন এই পরিষদের সদস্য। এখন আমি এই পরিষদের সদস্য। এরপর আমার ছেলে হবে এই পরিষদের সদস্য। এরপর আমার নাতি হবে এই পরিষদের সদস্য। এরপর ...

মাইকমাষ্টার
মাননীয় সদস্য, আপাতত আপনি আপনার কথাটা বলেন।

রুস্তম আলী
মাননীয় মাইকমাষ্টার, আমার এলাকায় প্রতিবছর মঙ্গায় বহু লোক না খেতে পেরে মারা যায়। এব্যাপারে  সরকারের কোনো পরিকল্পনা আছে কি না আপনার মাধ্যমে মাননীয় অর্থমাথার কাছে আমার প্রশ্ন।

মাইকমাষ্টার
মাননীয় অর্থমাথা।

অর্থমাথা
মাননীয় মাইকমাষ্টার, মঙ্গা কী- এ সম্পর্কে আমার কোনো স্পস্ট ধারণা নেই। আগে বুঝি পরে ব্যবস্থা নেব। ধন্যবাদ।

ছায়া
হো ... হো ... দেশের একপ্রান্তের মানুষ প্রতিবছরই কার্তিক মাসে না খেতে পেরে মারা যায় আর অর্থমাথা তা জানেন না, হি ... হি ... হি ... দেশের একপ্রান্তের মানুষ না খেতে পেরে মারা যায় আর মাত্র ১৯ কোটি টাকার আসবাবপত্র কেনা হয় নি বলে ঐ সব মানুষের প্রতিনিধিরা লজ্জিত। হা .. হা ... হা ...

বিরোধীনেতা-১
বস, অর্থমাথার এই কথার প্রেক্ষিতে চলেন আমরা পরিষদ ত্যাগ করি।

বিরোধীদলনেতা
সবুর কর। গ্যাঞ্জাম একটা না লাগিয়ে যাই কীকরে।

বিরোধীনেতা-২
বস, এতক্ষণ ধরে পরিষদে আছি বক্তৃতা দিতে পারলাম না। আর বসে থাকা যায় না। মুখ আমার ইশপিশ করতেছে। চলেন পরিষদ ত্যাগ করি।

(বিরোধীদলনেতা দাঁড়ায়)

মাইকমাষ্টার
মাননীয় বিরোধীদল নেতা কি কিছু বলতে চান?

বিরোধীদলনেতা
মাননীয় মাইকমাষ্টার আপনি সরকার দলের লোক হলেও এখন চোখ দুই দিকেই সমান রাখা আপনার পবিত্র দায়িত্ব। কিন্তু আমরা আপনার একপেশে দৃষ্টির শিকার। আর সরকারের কথা কী বলবো। যে সরকারে অর্থমাথা দেশের কোথায় কী হচ্ছে তা জানে না, যে সরকারে স্বরাষ্ট্রমাথা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সামাল দিতে পারে না। যে সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রীর দাম বাড়ায় আর মদের দাম কমায় তাদের সাথে পরিষদের থাকা আমাদের রুচিতে বাঁধে।

(প্রধানমাথা দাঁড়ায়)

মাইকমাষ্টার
মাননীয় বিরোধী দলনেতা আপনি একটু রেষ্ট নেন প্লিজ, মাননীয় প্রধানমাথা মাইক চেয়েছেন।

প্রধানমাথা
মাননীয় মাইকমাষ্টার আমরা এতক্ষণ ভূতের মুখে রামগীতি শুনলাম। কে বলে কী কথা। এসব কথা শুনলে ঘোড়াও হাসবে। জনগণ তাদেরকে বালিশ কেন দেয় নাই, তা তারা বুঝে না। তারা মুখে ফটফট করে বেশি কিন্তু কাজের বেলায় ঠনঠন।

বিরোধীদলনেতা
কী, আমি ফটফট করি। এতবড় কথা। আমার কথা শুনলে ঘোড়া হাসবে আর তার কথা  শুনলে যে কুত্তা পানিতে ঝাপ দেবে।

প্রধানমাথা
এই ওর কথা শুনে আমার মাথাটা আবার ছ্যাড়াব্যাড়া হয়ে যাচেছ কিন্তু।

বিরোধী দলনেতা
আর আমার মাথাটা যে হট হয়ে যাচ্ছে ?

প্রধানমাথা
চুপ বেয়াদব।

বিরোধীদলনেতা
কী বললি, তবেরে ...

(বিরোধীদলের সবাই এটাওটা ছোঁড়াছুঁড়ি আরম্ভ করে। সরকারি দলের ওরাও পাল্টা আরম্ভ করে)

মাইকমাষ্টার
আপনারা শান্ত হোন ...

বিরোধীদলনেতা
এই তোরা চলে আয় সব।

(বিরোধীদলের সবাই চলে যায়)
প্রধানমাথা    
আরে যান যান, তবে ৯০ দিনের মাথায় চলে আসবেন। নইলে তো বুঝেনই, গাড়ি-বাড়ি, ফোন, লাল পাসপোর্ট সবই যাবে কিন্তু।

মাইকমাষ্টার
আপনাদের সবাইকে অনুরোধ করবো পরিষদীয় ভাষায় কথা বলতে এবং পরিষদের নিয়মকানুনের প্রতি শ্রদ্ধা রাখতে। এখন ছয়ক্ষীরা-১ থেকে নির্বাচিত মাননীয় সদস্য বারেক মোল্লা বলেন।

বারেক মোল্লা
মাননীয় মাইকমাষ্টার আপনাকে ধন্যবাদ। আসলে আমার মাইকটি ঠিক আছে কিনা এটা টেষ্ট করার জন্যই মাইক চেয়েছিলাম। ধন্যবাদ।

মাইকমাষ্টার
মাইকের লাইনে কোনো ধরনের সমস্যা হলে আমাকে জানাবেন। এবার বলেন চাটিগা-২ থেকে নির্বাচিত সদস্য জনাব গোলাপ মহাজন।

গোলাপ মহাজন
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার। দেশে একটা নতুন আইন করা দরকার। পুলিশ বাহিনী যাতে যখন তখন পরিষদ সদস্যদের বাসাবাড়ি, দোকানপাটে অভিযান চালাতে না পারে এবং আমাদের কোনো ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ না করতে পারে এই জন্য একটা শক্ত আইন দরকার। ধন্যবাদ।

মাইকমাষ্টার
এই ব্যাপারে আপনি  লিখিত নোটিশ দেন। এবার বলেন ম্যান্টাল-২ থেকে নির্বাচিত জনাব নিজামউদ্দিন হাক্কানী।

নিজামউদ্দিন
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার। বিস্মিল্লাহির রাহ্মানির রাহিম। আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ। আল্লাহর অশেষ শুকুর আমি এখানে দাঁড়িয়ে কথা বলছি। আমি খুবই গুরুত্বপূর্ণ কথা বলতে চাই। আমাদের পরিষদ ক্যান্টিনে খুবই বাজে রান্না হয়। তা খেয়ে অনেকেই আমার মত পেটের পীড়ায় ভূগছে। এটা আশু সুরাহা হওয়া দরকার। ধন্যবাদ।

মাইকমাষ্টার
মাননীয় খাদ্যমাথা আপনি এটা দেখবেন। এবার মাননীয় সদস্য জনাব সরবত আলী চিলট-২, বলেন।

সরবত আলী
ধন্যবাদ, মাননীয় মাইকমাষ্টার । আমার বহুদিনের খায়েশ আজ পূরণ হলো এই মহান পরিষদে দাঁড়িয়ে কিছু বলতে পারছি। আমি মহান পরিষদে আমাদের প্রেষ্টিজ ইস্যু নিয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি কথা বলতে চাই। পত্রিকাওয়ালাদের যন্ত্রণায় আমাদের মানইজ্জত আর থাকে না মাননীয় মাইকমাষ্টার । দুইদিন পরে পরে খালি লেখে আমরা নাকি কোটি কোটি টাকার টেলিফোন বিল দেই না। এই দেখেন আজকেও লিখেছে- অধিকাংশ পরিষদ সদস্যদেরই লাখ টাকার  উপর টেলিফোন বিল বাকি। এটা বলার কী আছে মাননীয় মাইকমাষ্টার। আমরা তো জনগণের জন্যেই ফোন করি, নাকি? ধন্যবাদ।

মাইকমাষ্টার
জনাব সরবত আলী এটা একটা মামুলি বিষয়। এগুলো নিয়ে ভাববে না। নিশ্চিন্তে চালিয়ে যান। এবার মশকনগর- ৬ থেকে নির্বাচিত সদস্য জনাব বশিরউদ্দিন বিল্টু।  
 
বিল্টু
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাস্টার। আজ আসার সময় আমার মেয়ে খুব করে বলে দিল যেন বক্তৃতা দেই। পরিষদে বক্তৃতা দিলে টিভিতে দেখায় তো, তাই টিভিতে আমাকে কেমন দেখায় তা আমার মেয়ে দেখতে চায়। মামনি ... হা..ই ...।

মাইকমাষ্টার
বিল্টু সাহেব এখন তো নাকি টিভিতে প্যাকেজ জোয়ার। আপনি নিজেই একটা নাটক বানিয়ে হিরো হয়ে যান না, চেহারা ছবি তো ভালোই। তাহলে আরো ভালোভাবে মেয়ে দেখতে পারবে। এবার বলদবান্ধা-২ থেকে নির্বাচিত সদস্য জনাব জয়নাল সরদার, দয়া করে সংক্ষেপে বলবেন।

জয়নাল
ধন্যবাদ মাননীয় মাইকমাষ্টার। জিনিসপত্রে দাম যে হারে বেড়েছে তাতে মাননীয় প্রধানমাথার বেতনটা বাড়ানো জাতীয় কর্তব্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিদেশে কেউ উনার বেতন জিজ্ঞেস করলে আমরা লজ্জায় বলতে পারি না। আমি আশা করবো সরকার জনগুরুত্বপূর্ণ এই বিষয়টি ভেবে দেখবেন। ধন্যবাদ।

মাইকমাষ্টার
আপনি খুবই সময়োপযোগী কথা বলেছেন। এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমাথা কী বলেন?

প্রধানমাথা
জাতি আমাকে এত ভালোবাসে দেখে আমার গর্বে বুক ফুলে যাচ্ছে, আমি খুশিতে জ্ঞান হারাবো কিনা বুঝে উঠতে পারছি না। তবে আমি মনে করি পরিষদের সব সদস্যদেরই বেতন বাড়ানো উচিত, ঠিক আছে তাহলে এ ব্যাপারে আমার অর্থমাথা খুব দ্রুত ব্যবস্থা নেবেন। ধন্যবাদ।

(সবাই পাছা চাপড়াতে থাকে। এবং তা চলতে থাকে।)

ছায়া
হা হা হা.... আর দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান - এটা শুনে নিশ্চয়ই গর্বে  পেট ফুলে যায়... হো হো হো....

মাইকমাষ্টার
থামুন। আপনারা শান্ত হউন। জাতির এই আনন্দঘন মুহূর্তে আজ আর  কাউকেই মাইক দেব না। আগামীকাল অধিবেশন আবার বসবে। আজ এখানেই মুলতবি।

ছায়া
সুধী দর্শকমণ্ডলী, আবাদিদল ও আওয়ারা দলের দেশে এভাবেই পরিষদের অধিবেশন বসে, চলে এবং মুলতবি হয়। ভেড়ার মত নিরীহ জনগণের কোনো উন্নতি হয় না তাতে। আচ্ছা, ওদের পরিষদের সাথে আমাদের সংসদের কোথায় যেন একটা মিল আছে না ? কারণ কিছুদিন আগে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা চলতি অষ্টম সংসদের উপর একটা রিপোর্ট দিয়েছিল। রিপোর্টটি এরকম- “চলতি অষ্টম জাতীয় সংসদের ৪র্থ , ৫ম ও ৬ষ্ঠ অধিবেশনে সংসদ সদস্যবৃন্দ নিজ নিজ দলের নেতাকর্মীদের প্রশংসা করেছেন ৪৯৩ বার, অপর দলের সমালোচনা করেছেন ৩৬৭ বার  এবং অপ্রাসঙ্গিক ও অপ্রয়োজনীয় কথা বলেছেন ২০৭ বার। তিনটি অধিবেশনে মোট ৩৮টি কার্যদিবসে ১২৭ ঘণ্টা ৩৫ মিনিট ২৭ সেকেন্ডে অধিবেশন চলে। এরমধ্যে মাত্র ২২ ঘণ্টা ২ মিনিট ১৬ সেকেন্ডে সময় ব্যয় হয়েছে আইন প্রণয়ন ও সংসদীয় কাজে। উল্লেখ্য যে, সংসদ অধিবেশনে প্রতিমিনিটে ব্যয় হয় ১৫ হাজার টাকা। সেই অনুযায়ী তিন অধিবেশনে মোট ব্যয় হয় ১১ কোটি ৪৮ লাখ ৩৯ হাজার ২৫০ টাকা।” আপনার আমার রক্ত পানি করা ট্যাক্সের টাকা এসব অনুৎপাদনশীল আলোচনা পেছনে ব্যয় হয়। ভেড়ার পালকে রাখাল যেদিকে নিয়ে যায় তারা সেদিকেই যায়- আমরাও কি ভেড়ার পালের মতই চলছি না?

(হন্তদন্ত হয়ে জীর্ণশীর্ণ ভাবে লোকটি প্রবেশ করে)

লোক
এই যে ভাই- আমার কথা  কী কইল? আমার জন্য কী করল?

ছায়া
তুমি পাঁচ বছরের জন্য বালিশটা ওদের দিয়েছো, পাঁচ বছর পর নিশ্চয়ই খবর নিতে আসবে। অপেক্ষায় থাক।

লোক(দুদলের কাছে গিয়ে)
ও ভাই, আমার জন্য কী করলেন?

আবাদী দলনেতা
চুপ, ঘ্যানরঘ্যানর করবি না, টাইম নাই।

আওয়ারা দলনেতা
চুপ, প্যানরপ্যানর করবি না।

আবাদী ও আওয়ারা দলের সবাই
চুপ, চুপ, চুপ-

(গান)
আমরা সবাই নেতা আমাদের এই ভেড়ার রাজত্বে
এখন আমরা ভেড়াদেরকে চড়াবো ইচছা মতে,
আমরা সবাই নেতা ...

[নাটকটি অধিবেশন এখানেই মুলতবি' নামে ছাপা হয়েছিলো। পরবর্তী সময়ে খোঁয়ার' নামে থিয়েটার আর্ট ইউনিট, ঢাকা- সাইফ সুমনের নির্দেশনায় মঞ্চে এনেছে]

সাইফ সুমন : নাট্যজন, সদস্য- থিয়েটার আর্ট ইউনিট, সহকারী সম্পাদক- থিয়েটারওয়ালা